Tuesday, July 29, 2014

পাইলস কেন হয় এবং করণীয় কি ?

কোষ্ঠকাঠিন্য, ক্রনিক বা দীর্ঘ মেয়াদি কাশি, ডায়রিয়া, গর্ভধারণ, লিভার সিরোসিস, প্রস্রাবে বাধা, মলদ্বারের ক্যান্সার, দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে কাজ করা সহ অনেক কারনে পাইলস বা অর্শ রোগের সৃষ্টি হয়।পাইলস বা হেমোরয়েড (বাংলায় অর্শ্ব বা গেজ)- এর নামকরন নিয়ে নানা ধরনের জটিলতা রয়েছে। তবে নাম যাই হোক না কেন, পাইলস হচ্ছে মলদ্বারের ভেতরের আবরনী, তার রক্ত নালী ও অন্যান্য মাংশ পেশীর সমন্বয়ে গঠিত একটি কুশন বা গদির ন্যায় তুলতুলে নরম অংশ। এটি মলদ্বারের ভেতরেই থাকে। কিন্তু যখন রোগ হিসাবে প্রকাশ পায় তখন ঝুলে বাইরে বের হয়ে আসতে পারে।
পাইলস কেন হয় এবং করণীয় কি ?

পাইলস কেন হয়

বহুবিধ কারনে পাইলস এর লক্ষণ প্রকাশ পেতে পারে।
  • দীর্ঘ সময় টয়লেট এ বসে থাকা এবং চাপ প্রয়োগ করে টয়লেট করা, বিশেষ করে দীর্ঘমেয়াদী কোষ্টকাঠিন্য।
  • প্যান এ টয়লেট করা।
  • বংশানুক্রমিক ভাবেও এ রোগ ছড়ায়।
  • ঘন ঘন পতলা পায়খানা হওয়া।
  • রক্ত নালীর মধ্যে কপাটিকা (ভাল্ব) না থাকা।
  • গর্ভকালীন অবস্থা।

উপসর্গ বা লক্ষণ 

  • সাধারণত মলদ্বার দিয়ে টাটকা রক্ত ঝরাই একমাত্র লক্ষণ। বিশেষ করে মলত্যাগের সময় মলের এক পাশ দিয়ে টাটকা রক্ত আসতে দেখা যায়। 
  • মলদ্বার দিয়ে রস নির্গত হওয়া যা মলত্যাগের আগে ও পরে ফোঁটায় ফোঁটায় পড়তে থাকে। 
  • মলদ্বার বেরিয়ে আসা। 
  • রক্ত শূন্যতা, মলদ্বারে ব্যথা ইত্যাদি। 
চিকিৎসা না করালে মলদ্বারে আলসার, গ্যাংগ্রিন, ফোঁড়া বা এরসেস, থ্রম্বোসিস ইত্যাদি জটিলতার সৃষ্টি হয়।
কাজেই উপরের যে কোন উপসর্গ বা লক্ষণ দেখা দিলে দ্রুতই একজন অভিজ্ঞ হোমিও চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহণ করুন।হোমিওপ্যাথিক চিকিত্সায় এর রয়েছে বেশি সফলতা।

কোষ্ঠ কাঠিন্য আক্রান্তদের জন্য পরামর্শ

  • প্রতিদিন পানি খাবেন- ১৫ থেকে ২০ গ্লাস 
  • আশযুক্ত খাবার অর্থাৎ টাটকা শাক-সবজি, ফল মূল বেশি বেশি খাবেন। 
  • সকাল এবং রাতে ২ চামচ ইসুফগুলের ভুষি এক গ্লাস পানিতে মিশিয়ে পর পর দুই সপ্তাহ খাবেন। রাতে এক গ্লাস কুসুম গরম দুধ খাওয়া যেতে পারে। 
মলত্যাগের বাসনা নিয়ে সকালে হউক বা রাতে হউক একটি নির্দিষ্ট সময় প্রতিদিন টয়লেটে যেতে হবে। মানুষ অভ্যাসের দাস সে অভ্যাস নিজের মধ্যে গড়ে তুলতে হবে। এতো কিছুর পরেও যদি সুফল না আসে তা হলে অবশ্যই একজন অভিজ্ঞ হোমিও চিকিৎসকের পরামর্শক্রমে চিকিৎসা শুরু করবেন। যত দ্রুত চিকিৎসা শুরু করবেন তত তাড়াতাড়ি ভালো হবেন।

অর্শ বা পাইলস রোগের কার্যকর চিকিৎসা

এলোপ্যাথিতে এই রোগের রিং লাইগেশন, ইনজেকশন, সার্জারী ইত্যাদি চিকিৎসা রয়েছে। এই সকল চিকিৎসা যে শুধু ব্যয়বহুল তা নয় এতে রয়েছে আরো কিছু জটিলতা যা একমাত্র ভুক্তভুগীরাই বুঝে থাকেন। তারপর আবার এলোপ্যাথিক চিকিৎসায় পুরুপুরি ঠিকঠাক ভাবে এই রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায় না। অনেক ডাক্তার শুধু খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করে রোগীর সমস্যাকে কমিয়ে রাখার চেষ্টা করে থাকেন। বলতে গেলে এলোপ্যাথিতে অর্শ বা পাইলস রোগের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন, কার্যকর, স্থায়ী এবং জটিলতামুক্ত কোন চিকিৎসা নেই।

অথচ হোমিওপ্যাথিতে রয়েছে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন অনেক উন্নত মানের ঔষধ যা অর্শ বা পাইলস রোগটি যত পুরাতনই হোক না কেন সারিয়ে তুলতে পারে। কিন্তু এটি নির্ভর করে হোমিও চিকিৎসকের মেডিসিনের উপর দক্ষতা এবং অনেক ক্ষেত্রে বাস্তব অভিজ্ঞতার উপর। তাই আপনার অর্শ বা পাইলস রোগ যত জটিল আর কঠিন উপসর্গ সম্পন্নই হোক না কেন রেজিস্টার্ড এবং পাইলস চিকিৎসায় অভিজ্ঞ একজন হোমিও ডাক্তারের পরামর্শক্রমে চিকিৎসা নিন - আশা করি বিফল হবেন না।

আরেকটি কথা মনে রাখা ভাল - একজন হোমিও ডাক্তারের চিকিৎসায় ফল না পেলে ডাক্তার পরিবর্তন করুন। কারণ মেডিসিন এবং এর পাওয়ার সিলেকশনের ভুলের কারণে অনেক রেজিস্টার্ড কিন্তু অনভিজ্ঞ হোমিও ডাক্তারের চিকিৎসা ব্যর্থ হতে দেখা যায়। এটা ডাক্তারের দোষ, হোমিওপ্যাথির নয়। তাই আশানুরূপ ফল পেতে আপনার যেকোন রোগে অভিজ্ঞ হোমিও ডাক্তারের পরামর্শক্রমে চিকিৎসা নিন। ধন্যবাদ।

পাইলস কেন হয় এবং করণীয় কি ? ডাক্তার আবুল হাসান 5 of 5
কোষ্ঠকাঠিন্য, ক্রনিক বা দীর্ঘ মেয়াদি কাশি, ডায়রিয়া, গর্ভধারণ, লিভার সিরোসিস, প্রস্রাবে বাধা, মলদ্বারের ক্যান্সার, দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে ...

ডাক্তার আবুল হাসান (ডিএইচএমএস - বিএইচএমসি, ঢাকা)

বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ, ঢাকা

যৌন ও স্ত্রীরোগ, চর্মরোগ, কিডনি রোগ, হেপাটাইটিস, লিভার ক্যান্সার, লিভার সিরোসিস, পাইলস, IBS, পুরাতন আমাশয়সহ সকল ক্রনিক রোগে হোমিও চিকিৎসা নিন।

১০৬ দক্ষিন যাত্রাবাড়ী, শহীদ ফারুক রোড, ঢাকা ১২০৪, বাংলাদেশ
ফোন :- ০১৭২৭-৩৮২৬৭১ এবং ০১৯২২-৪৩৭৪৩৫
ইমেইল:adhunikhomeopathy@gmail.com
স্বাস্থ্য পরামর্শের জন্য যেকোন সময় নির্দিধায় এবং নিঃসংকোচে যোগাযোগ করুন।
পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াহীন সর্বাধুনিক ও সফল হোমিওপ্যাথিক চিকিত্সা নিন

কিডনি সমস্যা

  • কিডনি পাথর
  • কিডনি সিস্ট
  • কিডনি ইনফেকশন
  • কিডনি বিকলতা
  • প্রসাবে রক্ত
  • প্রস্রাবের সময় ব্যথা
  • প্রসাব না হওয়া
  • শরীর ফুলে যাওয়া

লিভার সমস্যা

  • ফ্যাটি লিভার
  • লিভার অ্যাবসেস (ফোঁড়া)
  • জন্ডিস
  • ভাইরাল হেপাটাইটিস
  • ক্রনিক হেপাটাইটিস
  • HBsAg (+ve)
  • লিভার সিরোসিস
  • লিভার ক্যানসার

পুরুষের সমস্যা

  • যৌন দুর্বলতা,দ্রুত বীর্যপাত
  • শুক্রতারল্য,ধাতু দৌর্বল্য
  • হস্তমৈথুন অভ্যাস
  • হস্তমৈথনের কুফল
  • অতিরিক্ত স্বপ্নদোষ
  • পুরুষত্বহীনতা, ধ্বজভঙ্গ
  • পুরুষাঙ্গ নিস্তেজ
  • সিফিলিস, গনোরিয়া

স্ত্রীরোগ সমূহ

  • স্তন টিউমার
  • ডিম্বাশয়ে টিউমার
  • ডিম্বাশয়ের সিস্ট
  • জরায়ুতে টিউমার
  • জরায়ু নিচে নেমে আসা
  • অনিয়মিত মাসিক
  • যোনিতে প্রদাহ,বন্ধ্যাত্ব
  • লিউকোরিয়া, স্রাব

পরিপাকতন্ত্রের সমস্যা

  • পেটে গ্যাসের সমস্যা
  • ক্রনিক গ্যাস্ট্রিক আলসার
  • নতুন এবং পুরাতন আমাশয়
  • আইবিএস (IBS)
  • আইবিডি (IBD)
  • তীব্রতর কোষ্ঠকাঠিন্য
  • পাইলস, ফিস্টুলা
  • এনাল ফিসার

অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা

  • বাতজ্বর
  • লিউকেমিয়া, থ্যালাসেমিয়া
  • সাইনোসায়টিস
  • এলাৰ্জি
  • মাইগ্রেন
  • অনিদ্রা
  • সোরিয়াসিস (Psoriasis)
  • সাধারণ অসুস্থতা