Thursday, August 21, 2014

মাঝে মধ্যে নফল রোজা রাখার দশটি স্বাস্থ্যগত উপকারিতা

চিকিত্সকরা প্রায়ই মাঝে মধ্যে উপোস করার কথা বলে থাকেন। এর রয়েছে অনেক স্বাস্থ্যগত উপকারিতা। তাই মাঝে মধ্যে নফল রোজা রাখাটা আপনার জন্য ইহকাল এবং পরকালের জীবনের বিস্তর উপকারিতা বয়ে আনতে পারে। উপোস করার অর্থ শরীরকে কিছুক্ষণ বিশ্রাম দেওয়া। চিন্তা করুন আপনার জন্ম লগ্ন থেকে আপনার শরীরের অভন্তরীন কল-কব্জা গুলি কি পরিমান পরিশ্রম করে চলেছে?  তাই মাঝে মধ্যে নফল রোজা রাখার ফলে শরীরেরও বিশ্রাম হয়। এর নানা প্রকার স্বাস্থ্যগত উপকারিতা রয়েছে। নিচে সেগুলো সম্পর্কে আলোকপাত করা হলো :-
ওজন কমাতে সাহায্য করে :-
ওজন কমানোর অন্যতম নির্ভরযোগ্য পদ্ধতি হল মাঝে মাঝে নফল রোজা রাখা । বিভিন্ন পরীক্ষায় দেখা গিয়েছে যে নির্দিষ্ট কয়েক ঘণ্টা উপোস করলে অনেক বেশি ক্যালোরি ক্ষয় হয়। এনার্জির জন্য শরীর ফ্যাট সেলগুলোকে ভেঙে দেয়। এমনকি নিয়মিত ডায়েটিং করার থেকেও ক্যালোরি ক্ষয়ের জন্য মাঝেমধ্যে  নফল রোজা অনেক বেশি কার্যকরী।

ইনসুলিনের ক্ষমতা বাড়ায় :-
নির্দিষ্ট সময়সীমার উপোস শরীরে ইনসুলিনের ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এর ফলে শরীরে কার্বোহাইড্রেট গ্রহণের ক্ষমতা অনেকটাই বাড়ে। পরীক্ষায় দেখা গিয়েছে যে উপোসের পর ইনসুলিনের কার্যক্ষমতা বাড়ে ও শরীরের কোষগুলি রক্ত থেকে অনেক বেশি পরিমাণে গ্লুকোজ সংগ্রহ করতে পারে।

মেটাবলিজমের হার বৃদ্ধি করে :-
উপোসের ফলে আমাদের পাচনতন্ত্র বিশ্রাম পায়। ফলে হজম ক্ষমতা বাড়ে। এর ফলে শরীরে মেটাবলিজমের হার বৃদ্ধি পায়। কারোর হজমক্ষমতা দুর্বল হলে মেটাবলিজমের হারও কমবে। ফলে শরীরে ক্যালোরি ক্ষয় কম হবে। উপোস হজমক্ষমতাকে নিয়মিত করসে সাহায্য করে। এক্ষেত্রে নফল রোজা রাখা কার্যকর একটি পদ্ধতি। 

যৌবন ধরে রাখতে সাহায্য করে :-
উপোসর ফলে হজম ক্ষমতা আরও ভালো হয়। উপোস ভঙ্গের পর আমরা যা খাই, তার থেকে পুষ্টি সহজেই শরীরে শোষিত হয়। শরীর ঠিকমতো পুষ্টি পাওয়ায় বার্ধক্যের ছাপ দেরিতে পড়ে।

শরীরের প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় :-
উপোসের ফলে শরীর থেকে বেশি মাত্রায় টক্সিন বেরিয়ে যায়। ফলে ক্ষতি ফ্রি র্যাডিক্যাল কম উত্‍পন্ন হয়। ফ্রি র্যাডিক্যাল কমে যাওয়ায় শরীরের প্রতিরোধী ক্ষমতা বাড়ে। এমনকি নিয়মিত  নফল রোজা শরীরে ক্যানসার বাসা বাঁধার সম্ভাবনাও কমে।

খাওয়ার ধরণ উন্নত করে :-
মাঝেমধ্যেই টুকটাক মুখ চালানোর অভ্যেস থাকলে, মাঝেমধ্যে নফল রোজা আপনার সেই বদ-অভ্যেস ছাড়িয়ে দিতে পারে। এর ফলে আপনার খাওয়ার সময় এবং অভ্যেস উন্নত হবে। যেমন, আপনি যদি বিকেলে অনেক কিছু খেয়ে ফেলেন, তাহলে স্বাভাবিক ভাবেই রাতে খাবার খেতে দেরি হবে। রাত করে খেলে তা হজম ক্ষমতায় প্রভাব ফেলবে। কিন্তু সকাল থেকে বিকেল কয়েক ঘণ্টা উপোস দিলে, সহজেই রাতে আপনার খিদে পাবে। তাই নফল রোজা রাখুন। 

মস্তিষ্কের কাজ ভালো করে :-
পরীক্ষায় দেখা গিয়েছে উপোসর ফলে মস্তিষ্কের ক্রিয়া আরও উন্নত হয়। নির্দিষ্ট কয়েক ঘণ্টা উপোস দিলে নিউরোট্রফিক নামে বিশেষ প্রোটিন অধিক উত্‍পন্ন হয়। এই প্রোটিন মস্তিষ্ককে আরও সজাগ করে তোলে। তাই এক্ষেত্রে  নফল রোজা রাখা দারুন ফলাফল বয়ে আনে। 

মনঃসংযোগে সাহায্য করে :-
উপোসের পর অনেক সময়ই শরীর ও মন বেশি একাগ্র হয়ে ওঠে। এই কারণেই সম্ভবত পুজোর আগে উপোস থাকা রীতি রয়েছে। যাতে আল্লাহের আরাধনায় অধিক মনোযোগ দেওয়া যেতে পারে।

ক্ষুধা বৃদ্ধি করে :-
একবার ভাবুন তো, ৩ থেকে ৪ ঘণ্টা অন্তর খাবার খেলে কখনও ঠিকমতো ক্ষিদে অনুভব করতে পারেন কি? নিশ্চয় নয়। ১২ বা ২৪ ঘণ্টার উপোস রাখলে ক্ষিদের অনুভূতি শক্তিও বাড়ে। এর ফলে শরীরে বিভিন্ন প্রয়োজনীয় হরমোন সঠিক ভাবে ক্ষরণ হয়।

ত্বক পরিস্কার করে :-
মাঝে মধ্যে নফল রোজা ফলে শরীর থেকে বেশি পরিমাণে ক্ষতিকর টক্সিন বেরিয়ে যাওয়ায় ত্বক পরিস্কার হয়। লিভার, কিডনির কাজ আরও ভালো হওয়ায় ত্বকে দাগছোপ, ব্রন নির্মূল হয়। 

অনেক রকম উপকারিতা থাকলেও হুট করে অনেকের ক্ষেত্রেই রাখাটা কষ্টকর হতে পারে। যাদের বেশি কষ্ট হতে পারে তারা নফল রোজা শুরু করার আগে কয়েক সপ্তাহ নিচের কাজগুলি চর্চা করে নিন তারপর নফল রোজা রাখার চেষ্টা করুন। 
  • মাঝেমধ্যে শুধু ফল খেয়ে দিন কাটান
  • মাঝেমধ্যে এক-একেকটা দিনে শুধু একবার করে খান
  • একদিন শুধু শাকসবজি খেয়ে থাকুন।
  • ফল বা সবজি থেকে তৈরি স্মুদি খেয়ে এক দিন কাটান।
  • সবজি বা ফলের রস খেয়ে একদিন থাকুন।
  • একদিন শুধু স্যালাড খেয়ে থাকুন।
  • রাতের খাওয়া তাড়াতাড়ি সারুন। পরদিন সকালে দেরি করে ব্রেকফাস্ট করুন। যাতে ডিনার ও ব্রেকফাস্টের মাঝে ১৬ ঘণ্টার গ্যাপ থাকে।
সপ্তাহে একদিন ওপরের যে কোনও একটা টিপস মেনে চললেই আপনি তাতেও বেশ উপকার পাবেন। কিন্তু মনে রাখবেন মাঝে মধ্যে নফল রোজা রাখার ফলে আপনি যে শুধু স্বাস্থ্যগত উপকারিতা পাচ্ছেন তা নয় একই সাথে আপনি আল্লাহর সান্নিধ্য অর্জনের পথেও এগুচ্ছেন।
********   আধুনিক হোমিওপ্যাথি     ********
১০৬ দক্ষিন যাত্রাবাড়ী, শহীদ ফারুক রোড, ঢাকা ১২০৪
 ফোন: ০১৭২৭-৩৮২৬৭১, ০১৯২২-৪৩৭৪৩৫

মাঝে মধ্যে নফল রোজা রাখার দশটি স্বাস্থ্যগত উপকারিতা ডাক্তার আবুল হাসান 5 of 5
চিকিত্সকরা প্রায়ই মাঝে মধ্যে  উপোস করার কথা বলে থাকেন। এর রয়েছে  অনেক স্বাস্থ্যগত উপকারিতা। তাই মাঝে মধ্যে নফল রোজা রাখাটা আপনার জন্য ইহক...

ডাক্তার আবুল হাসান (ডিএইচএমএস - বিএইচএমসি, ঢাকা)

বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ, ঢাকা
যৌন ও স্ত্রীরোগ, লিভার, কিডনি ও পাইলসরোগ বিশেষজ্ঞ হোমিওপ্যাথ
১০৬ দক্ষিন যাত্রাবাড়ী, শহীদ ফারুক রোড, ঢাকা ১২০৪, বাংলাদেশ
ফোন :- ০১৭২৭-৩৮২৬৭১ এবং ০১৯২২-৪৩৭৪৩৫
ইমেইল:adhunikhomeopathy@gmail.com
স্বাস্থ্য পরামর্শের জন্য যেকোন সময় নির্দিধায় এবং নিঃসংকোচে যোগাযোগ করুন।