Sunday, December 17, 2017

যাইতুনের (জয়তুন, জলপাই) তেলের অসাধারণ স্বাস্থ্য উপকারিতা

শরীর যেমন, তেমনি সেখানে রোগের অভাব নেই। রোগ যেমন আছে তেমনি আছে তার প্রতিকার তবে প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধের পথই উত্তম। যাইতুনের তেল ব্যবহারে কী কী রোগকে প্রতিরোধ করা যায় আজ আমরা তার কিছুটা জেনে নিই।

যে ফলগুলোর প্রসঙ্গ মহাগ্রন্থ আল কোরআনে এসেছে তার অন্যতম হলো জয়তুন বা জলপাই। আল্লাহ তায়ালা এরশাদ করেন, ‘আর তিনি এ পানি দ্বারা তোমাদের জন্য উৎপাদন করেন ফসল। জয়তুন (জলপাই) খেজুর, আঙুর ও সব ধরনের ফল। নিশ্চয় এতে চিন্তাশীলদের জন্য নিদর্শন রয়েছে! (সূরা নাহ্ল : ১১)।

জয়তুন বা জলপাই হচ্ছে এক ধরনের টক ফল। এটি পূর্ব ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলের উপকূলীয় এলাকা, বিশেষ করে লেবানন, সিরিয়া ও তুরস্কের সামুদ্রিক অঞ্চল, ইরানের উত্তরাঞ্চল তথা কাস্পিয়ান সাগরের দক্ষিণে ভালো জন্মে। তাছাড়া ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে তেলের কারণে এর অর্থনৈতিক গুরুত্ব বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। জলপাই গাছ এক ধরনের চিরহরিৎ বৃক্ষ। ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চল এশিয়া, বাংলাদেশ ও আফ্রিকার কিছু অংশে এটা ভালো জন্মে। জলপাই গাছ ৮ থেকে ১৫ মিটার লম্বা হয়ে থাকে। এর পাতা ৪ থেকে ১০ সেন্টিমিটার লম্বা ও ১ থেকে ৩ সেন্টিমিটার প্রশস্ত হয়ে থাকে! জলপাই ফল বেশ ছোট আকারের, লম্বায় ১-২.৫ সেন্টিমিটার হয়ে থাকে।
যুদ্ধে শান্তির প্রতীক জলপাইয়ের পাতা এবং মানুষের শরীরের শান্তির দূত জলপাইয়ের তেল, যা অলিভ অয়েল (olive oil) আরবিতে জয়তুন, (জলপাই তেল) যেটাকে liquid gold বা ‘তরল স্বর্ণ’ নামেও ডাকা হয়। হাদিস শরিফে এরশাদ হয়েছে, ‘তোমরা জয়তুন (জলপাই) তেল ভক্ষণ করো এবং শরীরে মাখাও! (ইবনে মাজা : ৩৩২০)। সেই গ্রিক সভ্যতার প্রারম্ভিক কাল থেকেই এ তেল ব্যবহার হয়ে আসছে রন্ধন কর্মে ও চিকিৎসা শাস্ত্রে। আকর্ষণীয় এবং মোহনীয় সব গুণাবলিই এ জলপাই তেলের মধ্যে রয়েছে। অবশ্য বাংলাদেশে এ তেলের ব্যবহার তেমন একটা নেই।

শুধু শীতকালে শরীরে মাখা বা মালিশের কাজে ব্যবহার হয়, তাও খুবই কম! এছাড়া এ তেল খাওয়ার কাজে ব্যবহার নেই বললেই চলে। তবে জলপাই ফল সবাই খায়। আমাদের দেশে জলপাই খুবই সস্তা এবং এর আচার বেশ জনপ্রিয় এ দেশে। জলপাই ফলের দামের তুলনায় এর তেলের দাম আকাশচুম্বী! এতে অনেক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান রয়েছে. যেগুলো আমাদের শরীর সুস্থ ও সুন্দর রাখে। গবেষকরা জানিয়েছেন, ‘খাবারে জলপাইয়ের তেল ব্যবহারের ফলে শরীরের ব্যাড কোলেস্টরেল নিয়ন্ত্রণ হয় এবং গুড কোলেস্টেরল জন্ম হয়। তাছাড়া পাকস্থলীর জন্য এ তেল অনেক উপকারী।

দেহের এসিড কমায়, যকৃৎ (liver) পরিষ্কার করে, যা প্রতিটি মানুষের ২-৩ দিনে একবার করে দরকার হয়। কোষ্ঠকাঠিন্য রোগীদের জন্য দিনে এক চামচ জলপাই তেল বহু উপকারী। সাধারণত সন্তান জন্মের পর মায়েদের পেটে সাদা রঙের স্থায়ী দাগ পড়ে যায়, গর্ভধারণ করার পর থেকেই পেটে জলপাই তেল (olive oil) মাখলে কোনো জন্ম দাগ পড়ে না। এটা একটি পরীক্ষিত ব্যাপার। জলপাই তেল গায়ে মাখলে বয়স বাড়ার সঙ্গে ত্বক কুঁচকানো প্রতিরোধ হয়। 

কোলেস্টেরল কমায়:- গবেষকরা ২.৫ কোটি (25 million) লোকের ওপর গবেষণা করে দেখেছেন, ‘প্রতিদিন দুই চামচ কুমারী’ জলপাই তেল (virgin olive oil) এক সপ্তাহ ধরে খেলে ক্ষতিকারক এলডিএল (LDL) কোলেস্টেরল কমায় এবং উপকারী এইচডিএল (HDL) কোলেস্টেরল বাড়ায়। 

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে :- স্প্যানিশ (span) গবেষকরা দেখেছেন, খাবারে জলপাই তেল ব্যবহার করলে ক্লোন ক্যান্সার (colon cancer) প্রতিরোধ হয়। আরও কিছু গবেষক জানিয়েছেন, ‘এটা ব্যথানাশক (pain killer) হিসেবেও কাজ করে। 

উত্তম প্রতিষেধক:- তাছাড়া গোসলের পানিতে ১ থেকে ৪ চামচ মিশিয়ে গোসল করলে শরীর আরামদায়ক অনুভূত হয়। মেয়েদের রূপ বর্ধনের জন্য এটা অনেকটাই কার্যকর। জলপাই তেল যে কোষ্ঠকাঠিন্য কমায় তা আল্লামা ইবনুল কাইয়্যুম জাওযি (রহ.) তার (The medicine of the prophet) গ্রন্থে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করেছেন! বাজারে কয়েক ধরনের জলপাই তেল (অলিভ অয়েল) পাওয়া যায়। যেমন : এক. Extra virgin. এটা প্রথম ধাপ, সরাসরি জলপাই থেকে তৈরি। এসিডের পরিমাণ এক শতাংশের নিচে। রান্নার জন্য বা সালাদে গবেষকরা এর প্রস্তাব করেন। দুই. virgin - Extra virgin এর পরের ধাপ এটা। এতে এসিডের পরিমাণ ১ থেকে ২ শতাংশ থাকে। তিন. Refine pure তৃতীয় ধাপ, এতে এসিডের পরিমাণ ৩ থেকে ৪ শতাংশ।জয়তুন একাধারে ফল ও তরকারি হয়ে থাকে। এর তেল সর্বাধিক পরিষ্কার ও স্বচ্ছ এবং অসংখ্য গুণাগুণ ও বৈশিষ্ট্যের অধিকারী হয়ে থাকে। এটি হাজারো রোগের উত্তম প্রতিষেধক!

ক্যান্সার প্রতিরোধক :- কালো জলপাই 'ই' ভিটামিনে সমৃদ্ধ। এটা শরীরের চর্বিকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে। শরীরের ডিএনএ সেল নষ্ট হয়ে গেলে ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এ আশঙ্কা থেকে রক্ষা করতে পারে জলপাই তেল। এ তেল ব্যবহারে ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ভয় কম থাকে। মাছের তেলেও এ উপকার পাওয়া যায়।

চামড়া ও চুলের স্বাস্থ্য:- কালো জলপাই ফ্যাটি এসিড এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্টসে সমৃদ্ধ। এতে আছে ভিটামিন 'ই'। এটা শরীরে যেভাবে প্রয়োগ করা হোক না কেন আলট্রাভায়োলেট রেডিয়েশন থেকে চামড়াকে রক্ষা করে। যা স্কিন ক্যান্সার থেকে মানুষকে রক্ষা করে। হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধোয়ার পর কয়েক ফোঁটা জলপাই তেল মুখে মাখলে দারুণ উপকার পাওয়া যায়। গোসলের আগেও জলপাই তেল শরীরে মাখলে অনেক ধরনের সমস্যা থেকে চামড়া ভালো থাকে। নিজেকে শক্তপোক্ত এবং কর্মক্ষম রাখতে যেমন খাবারের প্রয়োজন তেমনি চুলের স্বাস্থ্য ঠিক রাখার জন্য চুলেরও খাবারের প্রয়োজন। চুলের খাবার হিসেবে জলপাই তেল দারুণ কার্যকরী। ডিমের কুসুমের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা জলপাই তেল নিয়ে চুলে ব্যবহার করে ভালো ফল পাওয়া যায়।

আয়রনের ভালো উৎস:- কালো জলপাই আয়রনে সমৃদ্ধ। শরীরে আয়রনের অভাব দেখা দিলে আমাদের টিস্যুগুলো পর্যাপ্ত অক্সিজেন পায় না। আর তখনই আমরা শারীরিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়ি অথবা আমাদের ঠাণ্ডা লাগে। শুধু তা-ই নয়, আয়রন শরীরে শক্তি উৎপাদনের দারুণ এক উৎস। সর্বোপরি শরীরের সব অঙ্গের কাজ সুষ্ঠুরূপে সম্পাদনের জন্য পর্যাপ্ত আয়রন প্রয়োজন।

চোখের উপকারে জলপাই:- কালো জলপাই চোখের জন্য দারুণ উপকারী। একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের প্রতিদিন যে পরিমাণ ভিটামিন 'এ' প্রয়োজন হয় তার দশ ভাগের এক ভাগ সহজেই পাওয়া যায় এক কাপ কালো জলপাইয়ে। এই পরিমাণ ভিটামিন চোখের স্বাস্থ্যের জন্য জরুরি। ভিটামিন 'এ'র অভাব হলে রাতকানা রোগ দেখা দিতে পারে। গ্লুকোমাসহ চোখের অন্য সব রোগ থেকে মুক্ত থাকার জন্য ভিটামিন 'এ' দরকার।

যাইতুনের (জয়তুন, জলপাই) তেলের অসাধারণ স্বাস্থ্য উপকারিতা ডাক্তার আবুল হাসান 5 of 5
শরীর যেমন, তেমনি সেখানে রোগের অভাব নেই। রোগ যেমন আছে তেমনি আছে তার প্রতিকার তবে প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধের পথই উত্তম। যাইতুনের তেল ব্যবহা...

ডাক্তার আবুল হাসান (ডিএইচএমএস - বিএইচএমসি, ঢাকা)

বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ, ঢাকা

যৌন ও স্ত্রীরোগ, চর্মরোগ, কিডনি রোগ, হেপাটাইটিস, লিভার ক্যান্সার, লিভার সিরোসিস, পাইলস, IBS, পুরাতন আমাশয়সহ সকল ক্রনিক রোগে হোমিও চিকিৎসা নিন।

১০৬ দক্ষিন যাত্রাবাড়ী, শহীদ ফারুক রোড, ঢাকা ১২০৪, বাংলাদেশ
ফোন :- ০১৭২৭-৩৮২৬৭১ এবং ০১৯২২-৪৩৭৪৩৫
ইমেইল:adhunikhomeopathy@gmail.com
স্বাস্থ্য পরামর্শের জন্য যেকোন সময় নির্দিধায় এবং নিঃসংকোচে যোগাযোগ করুন।
পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াহীন সর্বাধুনিক ও সফল হোমিওপ্যাথিক চিকিত্সা নিন

কিডনি সমস্যা

  • কিডনি পাথর
  • কিডনি সিস্ট
  • কিডনি ইনফেকশন
  • কিডনি বিকলতা
  • প্রসাবে রক্ত
  • প্রস্রাবের সময় ব্যথা
  • প্রসাব না হওয়া
  • শরীর ফুলে যাওয়া

লিভার সমস্যা

  • ফ্যাটি লিভার
  • লিভার অ্যাবসেস (ফোঁড়া)
  • জন্ডিস
  • ভাইরাল হেপাটাইটিস
  • ক্রনিক হেপাটাইটিস
  • HBsAg (+ve)
  • লিভার সিরোসিস
  • লিভার ক্যানসার

পুরুষের সমস্যা

  • যৌন দুর্বলতা,দ্রুত বীর্যপাত
  • শুক্রতারল্য,ধাতু দৌর্বল্য
  • হস্তমৈথুন অভ্যাস
  • হস্তমৈথনের কুফল
  • অতিরিক্ত স্বপ্নদোষ
  • পুরুষত্বহীনতা, ধ্বজভঙ্গ
  • পুরুষাঙ্গ নিস্তেজ
  • সিফিলিস, গনোরিয়া

স্ত্রীরোগ সমূহ

  • স্তন টিউমার
  • ডিম্বাশয়ে টিউমার
  • ডিম্বাশয়ের সিস্ট
  • জরায়ুতে টিউমার
  • জরায়ু নিচে নেমে আসা
  • অনিয়মিত মাসিক
  • যোনিতে প্রদাহ,বন্ধ্যাত্ব
  • লিউকোরিয়া, স্রাব

পরিপাকতন্ত্রের সমস্যা

  • পেটে গ্যাসের সমস্যা
  • ক্রনিক গ্যাস্ট্রিক আলসার
  • নতুন এবং পুরাতন আমাশয়
  • আইবিএস (IBS)
  • আইবিডি (IBD)
  • তীব্রতর কোষ্ঠকাঠিন্য
  • পাইলস, ফিস্টুলা
  • এনাল ফিসার

অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা

  • বাতজ্বর
  • লিউকেমিয়া, থ্যালাসেমিয়া
  • সাইনোসায়টিস
  • এলাৰ্জি
  • মাইগ্রেন
  • অনিদ্রা
  • সোরিয়াসিস (Psoriasis)
  • সাধারণ অসুস্থতা