Showing posts with label অ্যাজমা বা হাঁপানি. Show all posts
Showing posts with label অ্যাজমা বা হাঁপানি. Show all posts

Saturday, December 23, 2017

এলার্জি এক ধরনের চর্মরোগ,তবে চর্মরোগ মানেই এলার্জি নয়! কার্যকর চিকিৎসা কি ?

এলার্জি বাংলাদেশের লাখ লাখ মানুষের কাছে এক অসহনীয় ব্যাধি। এলার্জিতে হাঁচি থেকে শুরু করে খাদ্য ও ওষুধের ভীষণ প্রতিক্রিয়া ও শ্বাসকষ্ট হতে পারে। কারও কারও ক্ষেত্রে এলার্জি সামান্যতম অসুবিধা করে, আবার কারো ক্ষেত্রে জীবনকে দুর্বিষহ করে তোলে। ঘরের ধুলাবালি পরিষ্কার করছেন? হঠাৎ করে হাঁচি এবং পরে শ্বাসকষ্ট অথবা ফুলের গন্ধ নিচ্ছেন বা গরুর মাংস, চিংড়ি, ইলিশ, গরুর দুধ খেলেই শুরু হলো গা চুলকানি বা চামড়ায় লাল লাল চাকা হয়ে ফুলে ওঠা। এগুলো হলে আপনার এলার্জি আছে ধরে নিতে হবে।

এলার্জি কি? কেন হয় এবং কি করেই বা এড়ানো যায়? তা নিয়ে বিশেষজ্ঞের পরামর্শসহ সময়ের কণ্ঠস্বরের পাঠকদের জন্য আজ থাকছে একটি বিস্তারিত ফিচার।
এলার্জি এক ধরনের চর্মরোগ,তবে চর্মরোগ মানেই এলার্জি নয়!
বেশিরভাগ মানুষের ধারনা  চর্মরোগ মানেই এলার্জি। অথচ হাজারো চর্মরোগের মধ্যে এলার্জি হচ্ছে শুধু এক ধরনের রোগ। এলার্জি শব্দটি সকলের কাছে অতি পরিচিত হওয়া সত্ত্বেও এ নিয়ে ভুল ধারণার শেষ নেই।
এলার্জি এক ধরনের চর্মরোগ,তবে চর্মরোগ মানেই এলার্জি নয়!
কখনো কখনো আমাদের শরীরে সাধারণত ক্ষতিকর নয় এমন অনেক ধরনের বস্তুকেও ক্ষতিকর ভেবে প্রতিরোধের চেষ্টা করি। সাধারণত ক্ষতিকর নয় এমন সব বস্তুর প্রতি শরীরের এ অস্বাভাবিক প্রতিক্রিয়াকে এলার্জি বলা হয়। এলার্জি হলে হঠাৎ শরীরে বিভিন্ন ধরনের দানা উঠা শুরু হয় বা ত্বক লাল চাকা চাকা হয়ে ফুলে যায় এবং সেই সাথে প্রচণ্ড চুলকানি থাকতে পারে।

অনেক সময় সারা শরীরও ফুলে যায় এবং শ্বাসকষ্ট, বমি, মাথা ব্যথা, পেট ব্যথা, অস্থিসন্ধি ব্যথা, পাতলা পায়খানা ইত্যাদি হয়। এমনকি হঠাৎ কোন তীব্র এলার্জিক রিয়েকশনে রোগীর মৃত্যুও হতে পারে।

এলার্জির কোনো নির্দিষ্ট কারণ নেই। পৃথিবীর সব জিনিসই এলার্জির কারণ হতে পারে। একেকজনের দেহ ও ত্বক একেক ধরনের জিনিসের প্রতি এলার্জিক হয়ে থাকে। যে কোনো খাদ্য দ্রব্য, পরিধেয় ও ব্যবহার্য জিনিসপত্র, প্রসাধনী সামগ্রী, মশা-মাছি ও পোকা-মাকড়ের কামড়, পারিপার্শ্বিক ধুলা-বালি, আবহাওয়া, সূর্যালোক, কোনো নির্দিষ্ট ওষুধ, কৃমি, আঘাত, এমনকি দুশ্চিন্তাতেও এলার্জি হতে পারে। যাদের বংশে হাঁপানি, একজিমা বা এলার্জির সমস্যা আছে তাদের এলার্জির প্রবণতা তুলনামূলক অন্যদের তুলনায় বেশি।

এলার্জির প্রাথমিক ও তাত্ক্ষণিক চিকিত্সা

এলার্জির প্রাথমিক ও তাত্ক্ষণিক চিকিত্সা হিসেবে ওরাল, টপিকাল অথবা ইনজেক্টেবল এন্টিহিসটামিন বা অনেক সময় স্টেরয়েড দেয়া হয়। তবে সঠিক ও উপযুক্ত চিকিত্সার পূর্বশর্ত এলার্জি সৃষ্টিকারী কারণটি খুঁজে বের করতে হবে এবং যথা সম্ভব তা এড়িয়ে চলতে হবে।

প্রত্যেক মানুষের শরীরে এক একটি প্রতিরোধ ব্যবস্থা বা ইমিউন সিস্টেম থাকে, কোনো কারণে এই ইমিউন সিস্টেমে গোলযোগ দেখা দিলে তখনই এলার্জির বহিঃপ্রকাশ ঘটে।

এলার্জি আমাদের শরীর সবসময়ই ক্ষতিকর বস্তুকে (পরজীবী, ছত্রাক, ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া) প্রতিরোধের মাধ্যমে রোগ প্রতিরোধের চেষ্টা করে। এই প্রচেষ্টাকে রোগ প্রতিরোগ প্রক্রিয়া বা ইমিউন বলে। কিন্তু কখনও কখনও আমাদের শরীর সাধারণত ক্ষতিকর নয় এমন অনেক ধরনের বস্তুকেও ক্ষতিকর ভেবে প্রতিরোধের চেষ্টা করে। সাধারণত ক্ষতিকর নয় এমন সব বস্তুর প্রতি শরীরের এই অস্বাভাবিক প্রতিক্রিয়াকে এলার্জি বলা হয়। এলার্জি সৃষ্টিকারী বহিরাগত বস্তুগুলোকে এলার্জি উৎপাদক বা এলার্জেন বলা হয়।

এলার্জিজনিত প্রধান সমস্যাসমূহ?

এলার্জিজনিত সর্দি বা এলার্জিক রাইনাইটিস এর উপসর্গ হচ্ছে অনবরত হাঁচি, নাক চুলকানো, নাক দিয়ে পানি পড়া বা নাক বন্ধ হয়ে যাওয়া, কারো কারো চোখ দিয়েও পানি পড়ে এবং চোখ লাল হয়ে যায়।

এলার্জিক রাইনাইটিস দুই ধরনের সিজনাল এলার্জিক রাইনাইটিস :

বছরের একটি নির্দিষ্ট সময়ে এলার্জিক রাইনাইটিস হলে একে সিজনাল এলার্জিক রাইনাইটিস বলা হয়।

পেরিনিয়াল এলার্জিক রাইনাইটিস : সারাবছর ধরে এলার্জিক রাইনাইটিস হলে একে পেরিনিয়াল এলার্জিক রাইনাইটিস বলা হয়। লক্ষণ ও উপসর্গ- সিজনাল

এলার্জিক রাইনাইটিস : ঘন ঘন হাঁচি নাক দিয়ে পানি পড়া নাসারন্ধ্র বন্ধ হয়ে যাওয়া এছাড়াও অন্যান্য উপসর্গসমূহ চোখ দিয়ে পানি পড়া।

পেরিনিয়াল এলার্জিক রাইনাইটিস : পেরিনিয়াল এলার্জিক রাইনাইটিসের উপসর্গগুলো সিজনাল এলার্জিক রাইনাইটিসের মতো। কিন্তু এক্ষেত্রে উপসর্গগুলোর তীব্রতা কম হয় এবং স্থায়িতকাল বেশি হয়।

এ্যাজমা বা হাঁপানি 

উপসর্গ হচ্ছে কাশি, ঘন ঘন শ্বাসের সঙ্গে বাঁশির মতো শব্দ হওয়া বা বুকে চাপ চাপ লাগা, বাচ্চাদের ক্ষেত্রে মাঝে মাঝেই ঠান্ডা লাগা। এ্যাজমা রোগের প্রধান প্রধান উপসর্গ বা লক্ষণগুলো হলো- বুকের ভেতর বাঁশির মতো সাই সাই আওয়াজ শ্বাস নিতে ও ছাড়তে কষ্ট, দম খাটো অর্থাৎ ফুসফুস ভরে দম দিতে না পারা ঘনঘন কাশি, বুকে আটসাট বা দম বন্ধ ভাব, রাতে ঘুম থেকে উঠে বসে থাকা।

আর্টিকেরিয়া 

আর্টিকেরিয়ার ফলে ত্বকে লালচে ফোলা ফোলা হয় এবং ভীষণ চুলকায়। ত্বকের গভীর স্তরে হলে মুখে, হাত-পা ফুলে যেতে পারে। আর্টিকেরিয়ার ফলে সৃষ্টি ফোলা অংশসমূহ মাত্র কয়েকঘণ্টা স্থায়ী থাকে কিন্তু কখনও কখনও বার বার হয়। যে কোনো বয়সে আর্টিকেরিয়া হতে পারে। তবে স্বল্পস্থায়ী আর্টিকেরিয়া বাচ্চাদের মধ্যে এবং দীর্ঘস্থায়ী আর্টিকেরিয়া বড়দের মধ্যে দেখা যায়।

সংস্পর্শজনিত এলার্জিক ত্বক প্রদাহ/এলার্জিক কনটাক্ট ডারমাটাইটিস : চামড়ার কোথাও কোথাও শুকনো, খসখসে, ছোট ছোট দানার মতো উঠা। বহিঃস্থ উপাদান বা এলার্জেনের সংস্পর্শে ত্বকে হলে তাকে এলার্জিক কনটাক্ট ডারমাটাইটিস বলা হয়।

লক্ষণ ও উপসর্গ 

ত্বকে ছোট ছোট ফোসকা পড়ে ফোসকাগুলো ভেঙ্গে যায় চুয়ে চুয়ে পানি পড়ে ত্বকের বহিরাবরণ উঠে যায় ত্বক লালচে হয়ে এবং চুলকায়, চামড়া ফেটে অাঁশটে হয়।

একজিমা : একজিমা বংশগত চর্মরোগ যার ফলে ত্বক শুস্ক হয়, চুলকায়, অাঁশটে এবং লালচে হয়। খোঁচানোর ফলে ত্বক পুরু হয় ও কখনও কখনও উঠে যায়। এর ফলে ত্বক জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত ত্বক থেকে চুয়ে চুয়ে পানি পড়ে এবং দেখতে ব্রণ আক্রান্ত বলে মনে হয়। এটা সচরাচর বাচ্চাদের মুখে ও ঘাড়ে এবং হাত ও পায়ে বেশি দেখা যায়।

এলার্জিক কনজাংটাইভাইটিস :
  • উপসর্গ : চুলকানো ও চোখ লাল হযে যায়।
খাওয়ায় এলার্জি :
  • উপসর্গ : পেটে ব্যথা, বমি বমি ভাব, বমি হওয়া এবং ডায়রিয়া।
পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াজনিত এলার্জি  এটা খুবই মারাত্মক। এলার্জেন শরীরের সংস্পর্শে আসার সঙ্গে সঙ্গে এটা শুরু হয়ে যেতে পারে। নীচে উল্লেখিত উপসর্গগুলো হতে পারে। চামড়া লাল হয়ে ফুলে উঠে ও চুলকায়, শ্বাসকষ্ট, নিঃশ্বাসের সঙ্গে বাঁশির মতো আওয়াজ হয় মূর্ছা যেতে পারে, রক্তচাপ কমে গিয়ে রোগী শকে চলে যেতে পারে।

সাধারণ এলার্জি উৎপাদকসমূহ

মাইট মোল্ড ফলের রেণু বা পরাগ ঠান্ডা এবং শুষ্ক আবহাওয়া, খাদ্যদ্রব্য ঘরের ধুলো ময়লা প্রাণীর পশম এবং চুল পোকা-মাকড়ের কামড় ওষুধসহ কিছু রাসায়নিক দ্রব্যাদি প্রসাধন সামগ্রী উগ্র সুগন্ধি বা তীব্র দুর্গন্ধ।

প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা

রক্ত পরীক্ষা : বিশেষত রক্তে ইয়োসিনোফিলের মাত্রা বেশি আছে কিনা তা দেখা। সিরাম আইজিইর মাত্র : সাধারণত এলার্জি রোগীদের ক্ষেত্রে আইজিইর মাত্রা বেশি থাকে।

স্কিন প্রিক টেস্ট : এই পরীক্ষায় রোগীর চামড়ার উপর বিভিন্ন এলার্জেন দিয়ে পরীক্ষা করা হয় এবং এই পরীক্ষাতে কোন্ কোন্ জিনিসে রোগীর এলার্জি আছে তা ধরা পড়ে।

প্যাচ টেস্ট : এই পরীক্ষায় রোগীর ত্বকের উপর।

বুকের এক্সরে : হাঁপানি রোগের ক্ষেত্রে চিকিৎসা শুরু করার আগে অবশ্যই বুকের এক্সরে করে নেয়া দরকার যে অন্য কোনো কারণে শ্বাসকষ্ট হচ্ছে কিনা।

স্পাইরোমেট্রি বা ফুসফুসের ক্ষমতা দেখা : এই পরীক্ষা করে রোগীর ফুসফুসের অবস্থা সম্পর্কে সঠিক ধারণা করা যায়।

সমন্বিতভাবে এলার্জির চিকিৎসা হলো : এলার্জেন পরিহার : যখন এলার্জির সুনির্দিষ্ট কারণ খুঁজে পাওয়া যায়, তখন তা পরিহার করে চললেই সহজ উপায়ে এলার্জি নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

এলোপ্যাথিওষুধ প্রয়োগ

এলার্জি ভেদে ওষুধ প্রয়োগ করে এলার্জির উপশম অনেকটা পাওয়া যায়। এলার্জি ভ্যাকসিন বা ইমুনোথেরাপি : এলার্জি দ্রব্যাদি এড়িয়ে চলা ও ওষুধের পাশাপাশি ভ্যাকসিনও এলার্জিজনিত রোগীদের সুস্থ থাকার অন্যতম চিকিৎসা পদ্ধতি। এ পদ্ধতি ব্যবহারে কর্টিকোস্টেরয়েডের বহুল পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থেকে রেহাই পাওয়া যায়। বিশ্বের অধিকাংশ দেশে, বিশেষ করে উন্নত দেশগুলোতে এ পদ্ধতিতে চিকিৎসা দেয়া হয়ে তাকে। বর্তমানে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও এই ভ্যাকসিন পদ্ধতির চিকিৎসাকে এলার্জিজনিত রোগের অন্যতম চিকিৎসা বলে অভিহিত করেন। এটাই এলোপ্যাথিতে এলার্জি রোগীদের দীর্ঘমেয়াদী সুস্থ থাকার একমাত্র চিকিৎসা পদ্ধতি।

আরোগ্যকারী কার্যকর চিকিৎসা 

এখন পর্যন্ত অর্থাৎ এই আধুনিক যুগেও ৩০% এলার্জির কারণই নির্ণয় করতে পারেনি অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসা পদ্ধতি। আর যেহেতু সেগুলির কারণ তাদের জানা নেই তাই তারা এর স্থায়ী আরোগ্য দান কারী চিকিৎসা দিতে অক্ষম। তবে তাদের চিকিৎসায় কিছুদের জন্য রোগ উপশম হবে মাত্র, সেটা স্থায়ী ভাবে ভালো হবে না অর্থাৎ কিছুদিন পর আবার আপনার অবস্থা হবে আগের মতোই। আর ঔষধের  পার্শপ্রতিক্রিয়া থাকার কারণে সাথে তৈরি হবে আরো কিছু জটিলতা। 
অথচ আপনি জানেন কি ?
হোমিওপ্যাথিতে লক্ষণকে চিকিৎসা প্রদানকালে প্রাধান্য দেয়া হয় বলে যুগ যুগ ধরে এই চিকিৎসার মাধ্যমে সর্ব প্রকার এলার্জি এবং এলার্জি জনিত জটিলতা পুরুপুরি নির্মূল করে আসছে হোমিওপ্যাথরা। তাই এলার্জি সংক্রান্ত যাবতীয় সমস্যা থেকে চিরতরে মুক্তি পেতে অভিজ্ঞ একজন হোমিও ডাক্তারের পরামর্শক্রমে চিকিৎসা নিন। 
অবহেলা করলে এবং রোগ অনেকদিন ধরে চলতে থাকলে নিরাময় করা কঠিন হয়ে পড়ে। বর্তমানেও বাংলাদেশে এই পদ্ধতির চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।
বিস্তারিত

Wednesday, September 3, 2014

এলার্জি, এ্যাজমা বা হাপানী ও শ্বাসকষ্ট হলে করণীয় এবং বর্জনীয়

এলার্জি, এ্যাজমা/হাপানি এবং শ্বাসকষ্ট এই বিষয়গুলি একে অপরের সাথে ঘনিষ্ঠ। দেখা যায় এলার্জির তীব্রতা বাড়লে এ্যাজমা আক্রান্ত রোগীদের শ্বাসকষ্টও বেড়ে যায়। তাই যারা এ সমস্যায় ভুগছেন তাদের কিছুটা নিয়ন্ত্রিত জীবন যাপন করাই উচিত। ঔষুধ ছাড়া শুধুমাত্র নিয়ন্ত্রিত জীবন যাপন করলেও এ সমস্যার তীব্রতা অনেকাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব। এই সংক্রান্ত রোগীদের চলাফেরা, ওঠাবসা, খাবার-দাবার এক কোথায় জীবনযাত্রার সকল বিষয়ে সচেতন থাকা জরুরি। নিচে তার জন্য কিছু করণীয় এবং বর্জনীয় টিপস উপস্থাপন করা হলো। 
এলার্জি, এ্যাজমা ও শ্বাসকষ্টে করণীয় ও বর্জনীয়
করণীয় এবং বর্জনীয় বিষয়সমূহ :-
  • ধূলাবালি থেকে বাচতে রাস্তা ঘটে চলাচলের সমসয় মুখে মাস্ক ব্যবহার করুন। 
  • বাসা বাড়িতে কার্পেট ব্যবহার না করাই অতি উত্তম। 
  • ঘরে ধূঁপ ব্যবহার করেবেন না । 
  • উচ্চ মাত্রার সুগন্ধি ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। 
  • যেকোন প্রকার স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশ এড়িয়ে চলুন। 
  • বাসায় বিড়াল, কুকুর বা অন্য কোনো প্রাণী পোষা থেকে বিরত থাকুন। 
  • ঘর ঝাড়ু দেওয়ার সময় মাস্ক ব্যবহার করুন বা গামছা দিয়ে মুখ ঢেকে রাখুন। 
  • মশার কয়েলও শ্বাসকষ্ট সৃষ্টি করে থাকে এর থেকে নিরাপদ  দূরত্বে অবস্থান করুন। 
  • স্প্রে করার সময় নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান করুন কারণ এটাও বেশ ক্ষতিকর। 
  • যে কোনো উপায়ে ধূমপান পরিহার করা অপরিহার্য। 
  • ঠান্ডা পানি এবং শীতল খাবার গ্রহণ করা পরিহার করুন। 
  • বাসা বাড়িতে ফ্রীজে রাখা খাবার ভালো করে গরম করে গ্রহন করুন।
  • পুরাতন বই পত্র এবং বিছানা বা কার্পেট ঝেড়ে নেওয়ার সময়ও মাস্ক ব্যবহার করুন বা গামছা দিয়ে মুখ ঢেকে রাখুন। 
  • শীতকালে লেপ-তোষক ভাল করে রোদে শুকিয়ে ব্যবহার করুন। 
  • শীতের সময় শীতবস্ত্র ধুঁয়ে ব্যবহার করুন । 
  • শীত থেকে বাচতে উলেন কাপড়ের পরিবর্তে সুতি অথবা জিন্সের কাপড় ব্যবহার করুন। 
  • ছোট বা বড় ফুল ধরা গাছের নিচে বা তার আশেপাশে বসবেন না । ফুলের পাপড়ি আপনার শ্বাসকষ্ট বাড়াবে।
  • রান্না করার সময় মশলার ঝাঁঝাঁলো গন্ধ এড়াতে মাস্ক বা শুকনো কাপড় ব্যবহার করুন। 
  • ঘরে যাতে তেলাপোকা এবং ছারপোকা বাসা বাধতে না পারে সেদিকে দৃষ্টি রাখুন। 
  • লক্ষ্য রাখুন কি কি কারণে আপনার এলার্জি, এ্যাজমা ও শ্বাসকষ্ট বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং সে অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিন আরো কি কি করা দরকার। 
যেসব খাবার পরিহার করবেন :-
ইলিশ মাছ, চিংড়ি, গরুর মাংস, দুধ, হাঁসের ডিম (সাদা অংশ), মিষ্টি কুমড়া, কচু, বেগুন, আপেল, কলা এ সকল খাদ্য আপনার এলার্জি ও শ্বাসকষ্ট বাড়িয়ে দিবে। তাই এসব থেকে সাবধান থাকুন। 

যা যা পালন করার চেষ্টা করবেন :-
  • সবসময় হাসি-খুশি থাকার চেষ্টা করুন। 
  • ভয়, হতাশা ও চিন্তাগ্রস্থ হবেন না কখনো । বিষয়টা ইতিবাচক দৃষ্টিতে নিন। 
  • ভুলে যান যে আপনার এ্যাজমা ও শ্বাসকষ্ট সমস্যা রয়েছে। 
  • শ্বাস গ্রহনের পর প্রায় পনের সেকেন্ড শ্বাস ধরে রাখার অভ্যাস করুন। 
  • প্রতিদিন কিছু সময় শ্বাসের ব্যায়াম করার চেষ্টা করুন। 
  • সুযোগ পেলে কিছুটা সময় জোরে জোরে শ্বাস নিন। 
  • দুই ঠোট শীষ দেওয়ার ভঙ্গিতে এনে ধীরে ধীরে মুখ দিয়ে শ্বাস ছাড়ুন। 
  • শ্বাসকষ্ট বেশি হলে বা শ্বাসকষ্ট না কমলে দেরী না করে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। 
বিস্তারিত

Monday, August 18, 2014

অ্যাজমা বা হাঁপানির চিকিৎসা, প্রতিরোধক, উপশমকারক এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

হাঁপানির আমাদের দেশের একটি অতি পরিচিত শব্দ। একে সাধারণত লোকজন অ্যাজমা নামেই চিনে। গ্রীক ভাষায় অ্যাজমা শব্দের অর্থ হল হাঁপ ধরা অথবা হ্যাঁ করে শ্বাস টানা। গ্রীক চিকিৎসক হিপোক্রেটিস যে কোন ধরনের শ্বাসকষ্টকে হাঁপানি নাম দিয়েছিলেন। অ্যাজমা বা শ্বাসকষ্ট এমন একটা রোগ যার নির্দিষ্ট কোন কারণ নেই। বলা হয়ে থাকে ইহা এমন একটা রোগ যার নিয়ন্ত্রণই একমাত্র চিকিৎসা। অ্যাজমার প্রবণতা দিন দিন বেড়েই চলেছে।
উন্নত দেশ বলুন আর উন্নয়নশীল দেশই বলুন সব স্থানেই অ্যাজমা বেড়েই চলেছে। ৩০০ মিলিয়ন মানুষ বর্তমানে সারাবিশ্বে এ রোগে ভুগছেন। ২০২৫ সালের মধ্যে আরও ১০০ মিলিয়ন মানুষ এ রোগে আক্রান্ত হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কম বয়সের ছেলেদের মাঝে এ রোগ বেশি দেখা যায়। আর প্রাপ্ত বয়সের রোগীদের মাঝে মহিলারাই বেশি আক্রান্ত হয়।

হাঁপানিতে আক্রান্ত হওয়ার সময় শ্বাসনালিতে নিম্নোক্ত পরিবর্তনগুলো দেখা যায়:
  • শ্বাসনালি লাল ও ফুলে যাওয়ার ফলে সরু হয়।
  • শ্বাসনালির চারপাশের মাংসপেশিসমূহ সংকুচিত হয়ে শ্বাসনালিকে আরও সরু করে দেয়।
  • শ্বাসনালিতে অধিক পরিমাণ শ্লেষ্মা তৈরি হয়ে শ্বাসনালিতে বায়ুপ্রবাহ আংশিকভাবে বন্ধ করে দেয়।
চিকিৎসা :-
হাঁপানি একটি দীর্ঘমেয়াদি রোগ। সঠিক চিকিৎসা এবং ওষুধ ব্যবহারের মাধ্যমে হাঁপানি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। যেসব উত্তেজকের (ট্রিগার) কারণে হাঁপানির তীব্রতা বেড়ে যায়, রোগীকে সেগুলো শনাক্ত এবং পরিহার করতে হবে।
হাঁপানির চিকিৎসা, 
এ ছাড়া সব হাঁপানি রোগীকে নিম্নোক্ত বিষয়গুলোর প্রতি নজর রাখতে হবে:

  • ধূমপান এবং তামাকের ধোঁয়ার সংস্পর্শ পরিহার করতে হবে।
  • ঠান্ডা বাতাস হাঁপানির তীব্রতা বাড়িয়ে দেয়। এ সময় ওষুধের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে হবে।
  • ব্যায়াম ও শারীরিক পরিশ্রম নিরুৎসাহিত করা উচিত নয়। ব্যায়াম শরীর ভালো রাখে এবং উচ্চরক্তচাপ ও অন্যান্য জটিল রোগবালাই থেকে শরীরকে রক্ষা করে। সঠিক ওষুধ ব্যবহারের মাধ্যমে ব্যায়ামের সময় বা পরে হাঁপানিতে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা পরিহার করা সম্ভব।
  • বাড়ির পরিবেশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে এবং বাড়িতে অবাধ বিশুদ্ধ বায়ু চলাচলের ব্যবস্থা রাখতে হবে।
ওষুধ :- দুই ধরনের ওষুধ ব্যবহার করা হয়, যেমন:
  • হাঁপানি প্রতিরোধক
  • হাঁপানি উপশমকারক
হাঁপানি প্রতিরোধক :-
যেসব ওষুধের ব্যবহার হাঁপানি রোগে আক্রান্ত হওয়া প্রতিরোধ করে, সেগুলোকে হাঁপানি প্রতিরোধক বলা হয়।
দুই ধরনের ওষুধ হাঁপানি প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে:
  • এন্টি ইনফ্লামেটরি ওষুধসমূহ: এসব ওষুধ শ্বাসনালির প্রদাহ নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে হাঁপানি প্রতিরোধ করে। এই শ্রেণীর বহুল ব্যবহূত বুসোনাইড, ক্লোমিথাসেন, ফ্লুটিকাসোন ইত্যাদি।
  • ব্রঙ্কোডাইলেটর বা শ্বাসনালি প্রসারক: এসব ওষুধ দ্রুত শ্বাসনালিকে প্রসারিত করে হাঁপানির তীব্রতা প্রতিরোধ করে।
হাঁপানি উপশমকারক :-
ব্রঙ্কোডাইলেটরসমূহ উপশমকারক হিসেবে কাজ করে। ব্রঙ্কোডাইলেটরসমূহ শ্বাসনালিকে দ্রুত প্রসারিত করে। ফলে ফুসফুসে সহজে বায়ু চলাচল করতে পারে এবং এর মাধ্যমে হাঁপানিতে আক্রান্ত রোগীর উপসর্গসমূহ দ্রুত উপশম হয়।

দুই ধরনের ব্রঙ্কোডাইলেটর বা শ্বাসনালি প্রসারক আছে, যেমন:
  • ক্ষণস্থায়ী ব্রঙ্কোডাইলেটর—যেমন: সালবিউটামল। এসব ওষুধ দিনে তিন-চারবার ব্যবহার করতে হয়।
  • দীর্ঘস্থায়ী ব্রঙ্কোডাইলেটর—যেমন: ব্যামবিউটামল। এসব ওষুধ দিনে একবার ব্যবহার করতে হয়।
মৃদু বা মাঝারি হাঁপানিতে দীর্ঘদিন ধরে ক্ষণস্থায়ী ব্রঙ্কোডাইলেটর (যেমন: সালবিউটামল) ব্যবহার করলে কোনো ধরনের ক্লিনিক্যাল সুবিধা পাওয়া যায় না। তাই এসব ক্ষেত্রে দীর্ঘস্থায়ী ব্রঙ্কোডাইলেটর (যেমন: ব্যামবিউটামল) ব্যবহার করতে হবে। রাত্রিকালীন হাঁপানিতে মোডিফাইড রিলিজড থিওফাইলিনের বিকল্প হিসেবে ব্যামবিউটামল ব্যবহার করে ভালো সুফল পাওয়া যায়।

হাঁপানির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া :-
  • অনেক রোগীই হাঁপানি চিকিৎসার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কথা বলে, কিন্তু অনিয়ন্ত্রিত হাঁপানি আরও ভয়াবহ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে।
  • সঠিক চিকিৎসা ও ওষুধ ব্যবহারের মাধ্যমে হাঁপানি নিয়ন্ত্রণ না করলে বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ফুসফুসের কর্মক্ষমতা হ্রাস পাবে এবং অকেজো হবে।
  • শিশুদের হাঁপানির ঠিকমতো চিকিৎসা না করালে বৃদ্ধি ব্যাহত হয় এবং মায়েদের বেলায় গর্ভস্থ ভ্রূণের বৃদ্ধি ব্যাহত হয়।
হাঁপানি চিকিৎসার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া :-
  • করটিকোস্টেরয়েডের ব্যবহার ওরাল ক্যানডিয়াসিস সৃষ্টি করতে পারে। যেসব রোগী ইনহেলারের মাধ্যমে করটিকোস্টেরয়েড ব্যবহার করে, তাদের অস্টিওপোরোসিস প্রতিরোধ করার জন্য নিয়মিত ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্ট (যেমন: অসটোক্যাল/ অসটোক্যাল জেধার) গ্রহণ করা উচিত।
  • থিওফাইলিন এবং এ-জাতীয় ওষুধসমূহ ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায় এবং রোগীকে অবসন্ন করে দেয় বলে থিয়োফাইলিনের পরিবর্তে দীর্ঘমেয়াদি ব্রঙ্কোডাইলেটর— যেমন: ব্যামবিউটামল (ডাইলেটর) ব্যবহার করা উচিত।
হোমিওপ্যাথি চিকিত্সা :-
হোমিওপ্যাথরা হাপানির ক্ষেত্রে যে ট্রিটমেন্ট দিয়ে থাকে তাতে কোনো প্রকার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই এবং সেটা খুব দ্রুত ক্রিয়াশীল। তাই আপনার নিকটস্থ ভালো এবং অভিজ্ঞ কোনো  হোমিওপ্যাথের সাথে যোগাযোগ করে আজই চিকিত্সা নিন । 
********   আধুনিক হোমিওপ্যাথি     ********
১০৬ দক্ষিন যাত্রাবাড়ী, শহীদ ফারুক রোড, ঢাকা ১২০৪
 ফোন: ০১৭২৭-৩৮২৬৭১, ০১৯২২-৪৩৭৪৩৫
বিস্তারিত

হাঁপানি বা অ্যাজমা কি ছোঁয়াচে নাকি অন্য কিছু ?

হাঁপানি  বা অ্যাজমা এমন একটি ব্যাধি, যার সঙ্গে আমরা সবাই অল্পবিস্তর পরিচিত। এটি মানুষের দেহের অসহনীয় ও মারাত্মক রোগ। শ্বাসকষ্টজনিত কারণেই সাধারণত এ রোগ হয়ে থাকে। বিশ্বের প্রতিটি দেশেই এ রোগের প্রকোপ দেখা যায়। বিশেষ করে সামান্য কোনো ব্যাপারেই যাদের শ্বাসনালিরত সংকোচনের প্রবণতা রয়েছে এবং যাদের শ্বাসনালি অন্য সাধারণ মানুষের তুলনায় স্পর্শকাতর, তাদেরই এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে। শ্বাসনালি যখন সংকীর্ণ হয় তখন বুকের মধ্যে বাঁশির মতো শোঁ শোঁ আওয়াজ হয়। শ্বাসকষ্ট, কাশি ও বুকের মধ্যে দম বন্ধভাব অনুভূত হয়। আর শ্বাসনালি তখনই সংকীর্ণ হয়, যখন শ্বাসনালিতে প্রদাহের সৃষ্টি হয়।
হাঁপানি বা অ্যাজমা রোগ হওয়ার সঠিক বা সুনির্দিষ্ট কারণ এখন পর্ষন্ত আবিষ্কার করা সম্ভব হয়নি। যেসব কারণ আমাদের জানা সেগুলো শুধু হাঁপানি রোগের প্রবণতা বাড়াতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। অ্যাজমা রোগটি সাধারণ বংশগত কারণে থাকে। বেশির ভাগ হাঁপানি রোগীর দেহে এ রোগ সৃষ্টি হয়েছে তাদের পূর্বপুরুষদের কাছ থেকে। যদি কোনো পরিবারের বাবা, মা বা বংশের অন্য কোনো নিকটাত্মীয়ের এ রোগ থাকে, তবে পরিবারের অন্য কেউ এ রোগে আক্রান্ত হতে পারে। তবে বংশের সবাই যে আক্রান্ত হবে, তা কিন্তু নয়। বিশেষ কোনো ব্যক্তি এ রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে।


অনেকে ধারণা করে, অ্যাজমা বা হাঁপানি একটি ছোঁয়াচে রোগ। এ ধারণার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। প্রমাণ পাওয়া যেত, যদি দেখা যেত যে হাঁপানি রোগীর আশপাশে যারা দীর্ঘদিন ধরে থাকছে তাদের মধ্যেও ব্যাধিটি সংক্রমিত হয়েছে। অ্যাজমা রোগ সৃষ্টি হওয়ার পেছনে অনেক কারণ থাকে। এর মধ্যে যে কারণগুলো রয়েছে সেগুলো হলো ধুলোবালি, ধোঁয়া, হঠাৎ আবহাওয়ার পরিবর্তন, সর্দি, কাশি, মানসিক উত্তেজনা, অ্যালার্জি, ফুলের রেণু, রাতে বেশি খাওয়া, ধূমপান বেশি করা, ব্রংকোলাইটিস ইত্যাদি।

অ্যালার্জিজনিত অ্যাজমা অ্যালার্জি সৃষ্টিকারী এলার্জেনগুলো হচ্ছে পাম্প বা ঘাসের রেণু নানা ধরনের ধুলা, ময়লা দূষিত বাতাস কাঁচা রঙের গন্ধ, ঘরের চুনকাম কোনো কোনো ফলমূল ও খাদ্যদ্রব্য
নানা ধরনের পালক, পোষা প্রাণীর লোম ইত্যাদি।

এসব এলার্জেন বিক্রিয়া ঘটিয়ে অ্যাজমা বা হাঁপানি রোগের সৃষ্টি করে থাকে। সব অ্যাজমা রোগীর অ্যাজমা সৃষ্টির কারণ এক রকম নয়। বিভিন্ন রোগীর দেহে বিভিন্ন কারণে এ রোগ বাসা বাঁধতে পারে। অ্যাজমা বা হাঁপানি রোগটা নির্ভর করে প্রধানত উত্তেজকের ওপর। যেমন, অ্যালার্জি হচ্ছে হাঁপানির একটি প্রধান কারণ।

অ্যাজমার আরেকটি প্রধান কারণ হচ্ছে ভাইরাস। নানা রকম মানসিক উত্তেজনার কারণেও হাঁপানি রোগ হতে পারে। পেশাগত বিভিন্ন কারণে অ্যাজমা হয়ে থাকে। ব্যায়ামের ফলেও হাঁপানির সৃষ্টি হয়। বৃষ্টিতে ভেজা, কুয়াশায় হাঁটা, ঠান্ডা লাগানো ও বিভিন্ন অ্যালার্জি-জাতীয় খাবার থেকেও হাঁপানি হয়।

হাঁপানি একটি অত্যন্ত যন্ত্রণাদায়ক ব্যাধি। এ ব্যাধি হলে রোগী সব সময় প্রত্যাশা করে এটা থেকে দ্রুত পরিত্রাণ পেতে। বেশির ভাগ সময় দেখা যায়, শীতকালে হাঁপানি রোগীদের যন্ত্রণা বাড়ে।

তবে নিয়মিত ওষুধ সেবনে ও নিয়মকানুন মেনে চললে রোগীর পক্ষে দীর্ঘদিন বেঁচে থাকা সম্ভব। কারণ, এ রোগের ফলে খুব দ্রুত মৃত্যু হওয়ার আশঙ্কা কম। তবে মনে রাখতে হবে, শ্বাসকষ্ট বা হাঁপানি অ্যাজমার উপসর্গ মাত্র। সব ধরনের শ্বাসকষ্ট হাঁপানি নয়। বিভিন্ন কারণে একজন ব্যক্তির শ্বাসকষ্ট হতে পারে। সে অনুযায়ী লক্ষণ দেখে সঠিক হোমিওপ্যাথি চিকিত্সা নিতে হবে।
********   আধুনিক হোমিওপ্যাথি     ********
১০৬ দক্ষিন যাত্রাবাড়ী, শহীদ ফারুক রোড, ঢাকা ১২০৪
 ফোন: ০১৭২৭-৩৮২৬৭১, ০১৯২২-৪৩৭৪৩৫
বিস্তারিত

Tuesday, July 29, 2014

হাঁপানি এবং হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা

কস্টকর রোগ গুলির মধ্যে হাঁপানি সবচেয়ে পুরাতন এবং সুপরিচিত। এর রয়েছে বিভিন্ন ধরনের উপসর্গ। অ্যালোপ্যাথরা এ রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য নানা পেটেন্ট মেডিসিন ব্যবহার করে থাকেন যা সারা জীবন নিয়ে যেতে হয়, কিন্তু পুরোপুরি রোগ নির্মূল করতে পারেন না। এবার আসুন দেখি হাঁপানি কি এবং হোমিওপ্যাথরা কি বলেন ?

হাঁপানি হলো কিছুদিন পরপর বারে বারে আসা শ্বাসকষ্টের নাম যাতে শ্বাসনালী চিকন হওয়ার কারণে শ্বাস নেওয়ার অথবা ছাড়ার সময় হিস হিস শব্দ হয়। হাঁপানির সাথে কখনও কখনও কাশি থাকে এবং আঠালো কফ উঠে। হাঁপানির আক্রমণ যখন তীব্র হয়, তখন লক্ষণ অনুযায়ী ঔষধ খেয়ে জীবন বাঁচাতে হবে। তারপর যখন হাঁপানির আক্রমণ চলে যায়, তখন হাঁপানির কারণ অনুযায়ী মূল ঔষধ খেয়ে তাকে স্থায়ীভাবে নির্মূল করতে হবে।

হাঁপানিকে স্থায়ীভাবে নিরাময় করা অন্যান্য চিকিৎসা পদ্ধতিতে অসম্ভব হলেও একজন সুদক্ষ হোমিও চিকিৎসকের পক্ষে অসম্ভব নয়। হাঁপানির নাম (bronchial asthma, 1271allergic asthma, Infantile 2857asthma, exercise- induced asthma, Bronchitis) যা-ই হোক না কেন, ঔষধ খেতে হবে লক্ষণ অনুসারে। 

হাঁপানিকে স্থায়ীভাবে সারানোর ক্ষমতা পৃথিবীতে একমাত্র হোমিও ঔষধেরই আছে। হ্যাঁ, ঔষধ বা অন্য যে-সব জিনিস বা খাবারের কারণে হাঁপানি বেড়ে যায়, সেগুলো বাদ দিয়ে চলতে হবে। যেমন – বেশী পরিশ্রম, আবেগপ্রবন / উত্তেজিত হওয়া, নির্দিষ্ট কোন একটি ঔষধ (যেমন- বাতের ঔষধ), বিড়াল-কুকুরের পশম, ফুলের রেণু, গরুর মাংস, ইলিশ মাছ, চিংড়ি মাছ, কচুঁ শাক, মিষ্টি কুমড়া, বেগুন, ডাল ইত্যাদি ইত্যাদি।তাই হাঁপানিকে বিদায় জানাতে আপনার হোমিওপ্যাথের সাথে কথা বলুন আর আনন্দময় সুস্থ জীবন উপভোগ করুন।
********   আধুনিক হোমিওপ্যাথি    *********
১০৬ দক্ষিন যাত্রাবাড়ী, শহীদ ফারুক রোড, ঢাকা ১২০৪
 ফোন: ০১৭২৭-৩৮২৬৭১, ০১৯২২-৪৩৭৪৩৫
বিস্তারিত

Thursday, July 17, 2014

শ্বাসকষ্ট (অ্যাজমা বা হাঁপানি) ও তার প্রতিকার

বিভিন্ন ধরনের অ্যালার্জেন যেমন-ধুলা-বালি, ধোঁয়া, ফুলের রেণু, কলকারখানার নির্গত বিষাক্ত গ্যাস, গাড়ির ধোঁয়া, বিশেষ কিছু খাবার, ওষুধ ইত্যাদি অ্যালার্জি ও অ্যাজমার সৃষ্টি করে। যে কোনো সুস্থ ব্যক্তির অ্যালার্জি হতে পারে। সামান্য উপসর্গ হতে শুরু করে মারাত্মক উপসর্গ সৃষ্টি করতে পারে, এমনকি হঠাৎ তীব্র আকারে আক্রমণ করতে পারে। নিউইয়র্কে গবেষকরা বলেছেন যে, যানবাহন রাজপথে হাঁচি উদ্রেককারী অ্যালার্জেন সৃষ্টি করে।
ক্যালিফোর্নিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির মতে, প্রস্তর ফলক, ইস্টক প্রভৃতি দ্বারা আস্তর করার পথে বিভিন্ন উৎস হতে কমপক্ষে ২০টি অ্যালার্জেন পাওয়া যায়। ফুটপাতের ধূলিকণাকে বর্ণনা করেন এভাবে যে এগুলো হচ্ছে মৃত্তিকার ধুলা গাড়ির গচ্ছিত নিঃশোষিত পদার্থ, টায়ারের ধুলা, গাছ পাতার খণ্ড এবং অন্যান্য যৌগিক পদার্থের জটিল সংমিশ্রণ। পথের ধুলা শহরবাসীদের অ্যালার্জি/অ্যাজমাতে প্রবলভাবে গ্রহণ করে। কারণ রাজপথ দিয়ে চলাচলকারী যানবাহন, লোকজন প্রভৃতির মাধ্যমে এগুলো দ্রুতবেগে বায়ুমণ্ডলে মিশে যায়। তাদের মতে শতকরা ১২ ভাগ শহরবাসী নিঃশ্বাসের সঙ্গে এমন বায়ুবাহিত অ্যালার্জেন সৃষ্টি করে।

গবেষকদের মতে, রাজপথের খুব নিকটতম বসবাসকারীদের পথের ধুলার সাথে সম্পর্কযুক্ত অ্যালার্জি ও অ্যাজমার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি এবং রাস্তার ১০০ মিটারের মধ্যে বসবাসকারী শিশুদের মধ্যে কাশি, হুইজ, রানিংনোজ এবং নির্ণীত অ্যাজমার প্রকোপ অধিক। অ্যাজমা এবং অ্যালার্জি নিঃসন্দেহে একটি যন্ত্রণাদায়ক স্বাস্থ্য সমস্যা, তাই অ্যালার্জি ও অ্যাজমা যাতে না হয় সেদিকে লক্ষ রাখা উচিত। অ্যালার্জির সুনির্দিষ্ট কারণ রয়েছে। কী কারণে এবং কোন কোন খাবারে আপনার অ্যালার্জি দেখা দেয় তা শনাক্ত করে পরিহার করে অ্যালার্জি হতে রেহাই পাওয়া সম্ভব।

অ্যালার্জি সৃষ্টি হয় তখন যখন ইমোনোগ্লোবিন-ই-এর পরিমাণ রক্তে বেড়ে যায়। যার ফলে অ্যালার্জেন অ্যান্টিবডির বিক্রিয়ার পরিমাণ বেশি হয় এবং এই বিক্রিয়ার ফলে নিঃসৃত হিস্টামিনের পরিমাপ বেশি হয় যা অ্যালার্জি সৃষ্টি করে। মোটকথা ধুলাবালি, ধোঁয়া, গাড়ির বিষাক্ত গ্যাস, কলকারখানার সৃষ্ট পদার্থ, বৃষ্টিতে ভেজা, শীতের কুয়াশা, ফুলের রেণু, বিশেষ কয়েকটি খাবার যেমন-চিংড়ি, ইলিশ, বোয়াল, গাজর, গরুর মাংস, হাঁসের ডিম, পাকা কলা, আনারস, নারিকেল, কসমেটিকস ও অগণিত জানা-অজানা জিনিস আমাদের শরীরে কাশি, শ্বাসকষ্ট অ্যালার্জি ও অ্যাজমার সৃষ্টি করতে পারে।

অ্যাজমা বা হাঁপানি :-
দীর্ঘদিন ধরে শ্বাসতন্ত্রের প্রদাহ এবং তার প্রতি সংবেদনশীলতাই অ্যাজমা বা হাঁপানি। এর উপসর্গ হিসেবে দেখা দেয় হাঁচি, কাশি, বুকে চাপা ভাব, শ্বাস-প্রশ্বাস গ্রহণে বাধা।

হাঁপানির কারণ :-
বংশগত এবং পরিবেশগত কারণে হাঁপানি হলেও এ দুটি উৎপাদক কীভাবে সৃষ্টি করে তা পরিষ্কারভাবে জানা সম্ভব হয়নি। তবে প্রদাহের কারণে শ্বাসনালি লাল হয়, ফুলে যায়, সরু হয় এবং ইরিটেন্ট বা উদ্দীপকের গতি অতি সংবেদনশীল হয় যার ফলে হাঁপানির উপসর্গ দেখা যায়। নিম্নবর্ণিত বিভিন্ন উৎপাদকের (Triggers) কারণে হাঁপানির উপসর্গসমূহ সাধারণত দেখা যায়।
  • ইনফেকশন, সাধারণত ভাইরাসজনিত উপসর্গ যেমন- কোল্ড, ফ্লু ইত্যাদি।
  • অ্যালার্জেন, বিশেষত ধূলাবালি, পরাগরেণু, গৃহপালিত পশুপাখির ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র অংশ ইত্যাদি।
  • ব্যায়াম বা শারীরিক পরিশ্রম, বিশেষত শীতকালে।
  • আবেগ, যেমন-উত্তেজনা, ভয়, রাগ।
  • ইরিটেন্ট, প্রধানত বায়ুদূষণ।
  • ধূমপান (হাঁপানি রোগী নিজে ও পরিবারের অন্য সদস্যদের ধূমপান পরিহার করতে হবে)।
  • আবহাওয়ার পরিবর্তন।
  • খাবার যেমন-কৃত্রিম রঙ এবং কিছু কিছু খাবার।
  • ওষুধ, যেমন-এসপিরিন ও অন্যান্য NSAIDs এবং বেটা ব্লকার।

হাঁপানির উপসর্গসমূহ :-
  • ঘড়ঘড় করে শব্দসহ শ্বাস-প্রশ্বাস
  • শ্বাস-প্রশ্বাস বাধাগ্রস্ত হওয়া
  • বুকে ব্যথা এবং
  • কাশি ইত্যাদি
  • হাঁপানিতে আক্রান্ত হওয়ার সময় শ্বাসনালিতে নিম্নোক্ত পরিবর্তনগুলো দেখা যায়
  • শ্বাসনালি লাল ও ফুলে যাওয়ার ফলে সরু হয়।
  • শ্বাসনালির চারপাশের মাংসপেশিসমূহ সংকুচিত হয়ে শ্বাসনালিকে আরও সরু করে দেয়। শ্বাসনালিতে অধিক পরিমাণ শ্লেষ্মা তৈরি হয়ে শ্বাসনালিতে বায়ুপ্রবাহ আংশিকভাবে বন্ধ করে দেয়।
অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসা :-
হাঁপানি একটি দীর্ঘমেয়াদি রোগ। সঠিক চিকিৎসা এবং ওষুধ ব্যবহারের মাধ্যমে হাঁপানি সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। যেসব উত্তেজনের (ট্রিগার) কারণে হাঁপানির তীব্রতা বেড়ে যায় রোগীকে সেগুলো শনাক্ত করতে হবে এবং পরিহার করতে হবে। এছাড়া সব হাঁপানি রোগীকে নিম্নোক্ত বিষয়গুলোর প্রতি নজর রাখতে হবে।
  • ধূমপান এবং তামাকের ধোঁয়ার সংস্পর্শ পরিহার করতে হবে।
  • ঠান্ডা বাতাস হাঁপানির তীব্রতা বাড়িয়ে দেয়। এই সময় ওষুধের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে হবে।
  • ব্যায়াম এবং শারীরিক পরিশ্রম নিরুৎসাহিত করা উচিত নয়। ব্যায়াম শরীর ভালো রাখে এবং উচ্চরক্তচাপ ও অন্যান্য জটিল রোগবালাই থেকে শরীরকে রক্ষা করে। সঠিক ওষুধ ব্যবহারের মাধ্যমে ব্যায়ামের সময় বা পরে হাঁপানিতে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা পরিহার করা সম্ভব।
  • বাড়ির পরিবেশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে এবং বাড়িতে অবাধ বিশুদ্ধ বায়ু চলাচলের ব্যবস্থা রাখতে হবে।
অ্যালোপ্যাথি ওষুধ :-
দুই ধরনের ওষুধ ব্যবহার করা হয় যেমন-
(১) হাঁপানি প্রতিরোধক (২) হাঁপানি উপশমকারক

হাঁপানি প্রতিরোধক :-
যেসব ওষুধের ব্যবহার হাঁপানি রোগে আক্রান্ত হওয়া প্রতিরোধ করে তাদের হাঁপানি প্রতিরোধক বলা হয়। দুপ্রকারের ওষুধ হাঁপানি প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে।

অ্যান্টি ইনফ্লামেটরি ওষুধসমূহ :-
এসব ওষুধ শ্বাসনালির প্রদাহ নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে হাঁপানি প্রতিরোধ করে। এই শ্রেণীর বহুল ব্যবহৃত বুসোনাইড, ক্লোমিথাসেন, ফ্লুটিকাসোন ইত্যাদি।

ব্রঙ্কোডাইলেটর বা শ্বাসনালি প্রসারক : এসব ওষুধসমূহ দ্রুত শ্বাসনালিকে প্রসারিত করে হাঁপানির তীব্রতা প্রতিরোধ করে।

হাঁপানি উপশমকারক :-
ব্রঙ্কোডাইলেটরসমূহ উপশমকারক হিসেবে কাজ করে। ব্রঙ্কোডাইলেটরসমূহ শ্বাসনালিকে দ্রুত প্রসারিত করে ফলে ফুসফুসে সহজে বায়ু চলাচল করতে পারে এবং এর মাধ্যমে হাঁপানি আক্রান্ত রোগীর উপসর্গসমূহ দ্রুত উপশম হয়।

দু ধরনের ব্রঙ্কোডাইলেটর বা শ্বাসনালি প্রসারক আছে যেমন-
ক্ষণস্থায়ী ব্রঙ্কোডাইলেটর যেমন-সালবিউটামল। এসব ওষুধ দিনে ৩-৪ বার ব্যবহার করতে হয়।
দীর্ঘস্থায়ী ব্রঙ্কোডাইলেটর যেমন-ব্যামবিউটামল। এসব ওষুধ দিনে একবার ব্যবহার করতে হয়। মৃদু বা মাঝারি হাঁপানিতে দীর্ঘদিন ধরে ক্ষণস্থায়ী ব্রঙ্কোডাইলেটর (যেমন-সালবিউটামল) ব্যবহার করলে কোনো ধরনের ক্লিনিক্যাল সুবিধা পাওয়া যায় না। তাই এসব ক্ষেত্রে দীর্ঘস্থায়ী ব্রঙ্কোডাইলেটর (যেমন-ব্যামবিউটামল) ব্যবহার করতে হবে।
রাত্রিকালীন হাঁপানিতে মোডিফাইড রিলিজড থিওফাইলিনের বিকল্প হিসেবে ব্যামবিউটামল ব্যবহার করে ভালো সুফল পাওয়া যায়।

হাঁপানির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া :-
  • অনেক রোগীই হাঁপানি চিকিৎসার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কথা বলে কিন’ অনিয়ন্ত্রিত হাঁপানি আরও ভয়াবহ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে।
  • সঠিক চিকিৎসা ও ওষুধের ব্যবহারের মাধ্যমে হাঁপানি নিয়ন্ত্রণ না করলে বয়স বাড়ার সাথে সাথে ফুসফুসের কর্মক্ষমতা হ্রাস পাবে এবং অকেজো হবে।
  • শিশুদের হাঁপানির ঠিকমতো চিকিৎসা না করালে বৃদ্ধি ব্যাহত হয় এবং মায়েদের বেলায় গর্ভস্থ ভ্রূণের বৃদ্ধি ব্যাহত হয়।
অ্যালোপ্যাথি  হাঁপানি চিকিৎসার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া :-
করটিকোস্টেরয়েডের ব্যবহার ওরাল ক্যানডিয়াসিস সৃষ্টি করতে পারে। যেসব রোগী ইনহেলারের মাধ্যমে করটিকোস্টেরয়েড ব্যবহার করে তাদের অস্টিওপেরোসিস প্রতিরোধ করার জন্য নিয়মিত ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্ট (যেমন-অসটোক্যাল/অসটোক্যাল জেআর) গ্রহণ করা উচিত।
থিয়োফাইলিন এবং এ জাতীয় ওষুধসমূহ ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায় এবং রোগীকে অবসন্ন করে দেয় বলে থিয়োফাইলিনের পরিবর্তে দীর্ঘমেয়াদি ব্রঙ্কোডাইলেটর যেমন-ব্যামবিউটামল (ডাইলেটর) ব্যবহার করা উচিত।

হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা :-
হোমিওপ্যাথরা সাধারনত বেশ কিছু ঔষধের পাওয়ার এবং মাদার টিংচারের সমন্বয়ে চিকিৎসা প্রদান করে থাকেন। তার মধ্যে হোমিওপ্যাথিক মাদার টিংচারসমূহ অতি দ্রুত ফলাফল প্রদান করে থাকে যা তাত্ক্ষণিক ভাবে শ্বাসকষ্ট দূর করতে কার্যকর ভুমিকা রাখে। সবচেয়ে বড় কথা হল হোমিওপ্যাথি হলো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াহীন এক অনন্য চিকিৎসা বিজ্ঞান। তাই যে কেউ নিশ্চিত ভাবে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা গ্রহণ করতে পারেন। তবে এ ক্ষেত্রে অবশ্যই অরজিনাল মেডিসিন ব্যবহার করতে হবে। তা না হলে অনেক ক্ষেত্রেই আশানুরূপ ফলাফল পাওয়া যাবে না।
********   আধুনিক হোমিওপ্যাথি     ********
১০৬ দক্ষিন যাত্রাবাড়ী, শহীদ ফারুক রোড, ঢাকা ১২০৪
 ফোন: ০১৭২৭-৩৮২৬৭১, ০১৯২২-৪৩৭৪৩৫
বিস্তারিত